নাট্য সমালোচনা

‘কবিয়াল টুনি’ এবং ‘নববর্ষের উপহার’

অরিজিতা মুখোপাধ্যায়
কলকাতা,৩ জানুয়ারি ২০১৩

natya samalochona

হইহই করে সচল রাখল সচেতন শিশু প্রয়াস। ছবি- উত্তম মাহালি।

‘গ্রুপ থিয়েটার আর অকাদেমি সমাচার’-এর ফাঁকে কচিদের দল মাঝে মধ্যে উঁকি দিয়ে যায় বড়দের কোটর থেকে। ফাঁকতালে হঠাৎ হঠাৎ একটা করে কচি প্রযোজনায় তাদের দেখা যায়। কিন্তু ছোটদের দল তিন দিন ধরে আয়োজন করল রীতিমত ‘শিশু নাট্যোৎসব’ এই শহরেই। উদ্যোক্তা ছোটরা হলেও উৎসবের বয়স যখন কুড়ি, তখন বিস্মিত হতেই হয়। এবারেও সেই ঐতিহ্যে চেতলা কৃষ্টি সংসদ হইহই করে সচল রাখল সচেতন শিশু প্রয়াস।

চব্বিশে ডিসেম্বর পরপর দুটি নাটক উপভোগ করলেন দর্শক ওঁদের সঙ্গেই। ‘ছোটদের সায়ক’ তাদের নাটক ‘কবিয়াল টুনি’-র প্রযোজনায় সার্থক। একদল বাচ্চা রঙ ছড়িয়ে ঢেলে সাজাল উপেন্দ্রকিশোরের গপ্পোকে। বিভিন্ন পদবীর একদল টুনটুনি নিয়ে ‘টুনি পাড়া’-র ভাবনা চমৎকার লাগল। রাজার সাত রানিদের যৌথ কার্যকলাপও সুপরিকল্পিত কিন্তু মজাদার। বিভিন্ন সময়ে দঙ্গলের মধ্যে থেকেও এক একজনের স্বাতন্ত্র্য চোখে পড়ার মতো। শুধু কচিদের নাটক হিসেবে কম পেলাম সুর। মুখ্য ভূমিকায় সভাগায়ক ভাল-ই গাইলেন, কিন্তু তাঁর গলার সঙ্গতের জন্য প্রতিনিয়তই আনুষঙ্গিক যন্ত্রের অভাব বোধ করছিলাম।

পরবর্তী নাটকটি চেতলা কৃষ্টি সংসদের প্রযোজনায় ‘নববর্ষের উপহার’ যা অভিনয়ের, কৌতূকের, সরলতার বাছাই সুতোয় বোনা। ছোটবেলার ভয় দেখানো সেই বোর্ডিং স্কুলের নিয়ম কানুন, আর তার বেড়া ভেঙে কয়েকটি ছেলের দুষ্টুমি নিয়ে তৈরি হয়েছে এই নাটকের গল্প। নাটকটা দেখতে দেখতে ভীষণ পরিচিত এবং অবধারিতভাবেই মনে পড়বে ‘নন্টে ফন্টে’-র কথা। বছরের পর বছর এক ক্লাসে ফেল করতে করতে হতাশ হয়ে ভণ্ড সাধুবাবার ওষুধে বিশ্বাস। বন্ধুদের হাতে দ্বিতীয়দফায় বেজায় নাকাল হয়ে অবশেষে বোধোদয় বেশ মজা উপহার দিল দর্শকদের। অবাক হয়ে দেখছিলাম কত কম উপকরণে, অলঙ্করনে শুধুমাত্র ভাল লেখা, ভাল অভিনয়ের আকর্ষণে দলে ভারী বড় দর্শকেরাও প্রাণ খুলে হাসছেন। ভাবতে অবাক লাগলেও সত্যি যে, এই বাচ্চারা নিজেরাই নাটকের সমস্ত পরিকল্পনা দল বেঁধে করেছে। সৎ পরিশ্রমের হাসি অনেকদিন পর আবার স্বপ্ন দেখাবে আশা করাই যায়।

চেতলা কৃষ্টি সংসদের কর্নধার পিনাকী গুহকে অভিনন্দন জানাতে হয় দীর্ঘ কুড়ি বছর শুধুমাত্র থিয়েটার এবং বাচ্চাদের এই যুগলবন্দীর সাফল্যের জন্য। ছোটদের নিয়ে ইদানিং খুব বেশি ভাবতে বসেন না কেউই। তবু এই শহরেই এতগুলো বছর কাটিয়ে দেওয়া যায় ছোটদের থিয়েটারের উৎসব করে... বাঙ্গালির গর্ব বেঁচে থাক! কোনও স্পনসরশিপের সাহায্য ছাড়া, প্রচারমাধ্যমের সহযোগিতা ছাড়াও ছোটদের ভালবাসার কাজে উষ্ণতা পাওয়া যায় ডিসেম্বরের শীতে। ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা-র উদ্যোগে ছোটরা আমন্ত্রিত হয়েছে রাজধানীতেও। কিন্তু এতবছর রাসবিহারীর কাছে মুক্তাঙ্গন রঙ্গালয় ছাড়া শহরের কোনও বড় মঞ্চে এই নাট্যোৎসব উঠে আসতে পারেনি এখনও। ‘সত্যি কলকাতা, একমাত্র বিচিত্র এই দেশ’!

আয়োজন : চেতলা কৃষ্টি সংসদ
প্রযোজনা : চেতলা কৃষ্টি সংসদ এবং ছোটদের সায়ক

জনপ্রিয়

সমস্ত ভিডিও

বর্ধমানে তরুণীর উপর অ্যাসিড হামলা

এবিপি আনন্দ

দেখেছেন 1 জন

কালো টাকা নিয়ে জেটলি যা বললেন

এবিপি আনন্দ

দেখেছেন 0 জন

দেব-শ্রাবন্তীর বিন্দাস প্রেম

শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস্

দেখেছেন 0 জন

তাপস পাল লোফার নন, ল' মেকার

এবিপি আনন্দ।

দেখেছেন 0 জন