বিনোদন

ঐশ্বর্যার লাকি বছর

সৌম্য পাকড়াশি
কলকাতা, ১ জানুয়ারি, ২০১৩

aishwarya

২০১৩ সালে ছবি পেতে তাঁর কোনও অসুবিধেই হবে না। ছবি- ফাইল চিত্র।

২০১২ সালটা কি ঐশ্বর্যা রাই বচ্চন-এর জন্য একেবারেই পয়মন্ত নয়? এই সালেই তো নায়িকাকে নিয়ে হামলে পড়েছিল মিডিয়া, রটিয়ে দিয়েছিল কন্যাজন্মের পর তাঁর লোভাতুর শরীরী আবেদন শেষ; অতএব এবার লাইট-সাউন্ড-ক্যামেরা-অ্যাকশনকে বিদায় জানিয়ে শুধুই আদর্শ মা ও গৃহবধূর চরিত্রে অভিনয়ের পালা।

এটাই যদি ভেবে থাকেন, তাহলেই আপনি ভুল করছেন। সিনে-ক্রিটিকরা কিন্তু সাফ সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে ২০১২ সালটা সব দিক থেকেই ঐশ্বর্যার জন্য পয়া। এই বছরের পুরোটাই সংবাদের শিরোনামে ছিলেন তিনি; একটাও ছবি না করেই! এরকম সদর্থক রেকর্ড খুব কম নায়িকাই বজায় রাখতে পারেন। ফলে ২০১৩ সালে ছবি পেতে তাঁর কোনও অসুবিধেই হবে না।

এ তো গেল সিনে-ক্রিটিকদের হিসেব। এর বাইরেও আরেকটা হিসেব বলছে, ২০১৩ সালে সিনে-আকাশে আলো ছড়াবে ঐশ্বর্যা নামের আতশবাজি! এই ঘোষণা করেছেন দেশের বিখ্যাত জ্যোতিষীরা। তাঁদের হিসেব মতো, ২০১৩-তে চল্লিশ বছরের নায়িকার মধ্যে যে প্রাণশক্তি দেখা যাবে, তা সব দিক থেকেই হবে অদম্য। পাশাপাশি, গ্রহ-লগ্নের সঠিক অবস্থানের জন্যও সৌভাগ্য তুঙ্গে থাকবে নায়িকার। ফলে ফিরে আসতে কোনও ঝক্কিই পোহাতে হবে না তাঁকে।

কিন্তু হাতে একটাও ছবি না থাকলে নায়িকা ফিরে আসবেন কীভাবে? কে বলেছে, তাঁর হাতে একটাও ছবি নেই? ঐশ্বর্যা নামের সঙ্গে আপাতত জড়িয়ে রয়েছে বলিউডের বেশ কিছু ছবির ভবিষ্যৎ। সেগুলো হল শ্রীরাম রাঘবন-এর 'হ্যাপি বার্থডে', রাজকুমার সন্তোষী-র 'সামনা', রোহন সিপ্পি-র 'বিস্কিট' আর রাজীব মেনন-এর 'ধুন'। এর মধ্যে সবথেকে তাড়াতাড়ি মুক্তি পেতে চলেছে 'হ্যাপি বার্থডে'; ঐশ্বর্যার সঙ্গে ছবিতে অভিনয় করছেন পরেশ রাওয়াল, অমিশা পটেল এবং জন আব্রাহাম। তেমনই 'সামনা' ছবিতে তাঁকে দেখা যাবে অক্ষয় কুমার-এর সঙ্গে জুটি বেঁধে; বাকি দুটো ছবিতে তাঁর নায়ক অভিষেক বচ্চন। তবে ছবির তালিকা যত বড়-ই হোক না কেন, বলিউডে আপাতত ঐশ্বর্যার একটি হিট ছবির বড্ড প্রয়োজন। যার জোরে নিন্দুকদের মুখে ঝামা ঘষে দিয়ে নায়িকা সগর্বে বলে উঠতে পারেন, 'এভাবেও ফিরে আসা যায়'!

অন্যরা যা পড়ছেন

এই বিষয়ে আরও

জনপ্রিয়

সমস্ত ভিডিও

"যাকেই বসাবে সে'ই হবে আমাদের লোক"

এবিপি আনন্দ

দেখেছেন 177 জন

পাক্কা ঘুঘুর মেয়েবাজি

এসকেমুভিজ

দেখেছেন 224 জন

হক কথা বললেন অনুব্রত

এবিপি আনন্দ

দেখেছেন 406 জন